ওষুধ ছাড়াই উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণের সহজ এবং কার্যকর ১০ টি উপায়।

Spread the love

ওষুধ ছাড়াই উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণের সহজ এবং কার্যকর ১০ টি উপায়।

সাধারনত শরীরে রক্তের প্রবাহকে রক্তচাপ বলে। শরীরে রক্তের প্রবাহ স্বাভাবিকের থেকে বেশি বা কম দুইই শরীরের নেতিবাচক প্রভাব ফেলে। আজকের আলোচনা শরীরের উচ্চ রক্তচাপ নিয়ে। এই আকচনা থেকে আমরা জানবো উচ্চ রক্ত চাপ কি, শরীরে উচ্চরক্ত চাপের লক্ষন ও প্রভাব কি কি, প্রাকৃতিক উপায়ে অর্থাৎ ওষুধ ছাড়াই উউচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণের উপায় গুলি কি কি।

উচ্চ রক্তচাপ কি?

শরীরে রক্ত প্রবাহ বা চাপ স্বাভাবিকের থেকে বেশি থাকলে তাকে উচ্চ রক্তচাপ বা Hypertension (HTN or HT) বা High Blood Pressure (HBP) বলে। তবে কেউ উচ্চ রক্তচাপে ভুগছেন কি না তা বলার আগে অন্তত টানা বা পর পর তিন দিন তিনটি ভিন্ন ভিন্ন সময়ে অন্ততপক্ষে ৫ মিনিট বসে থাকার পরে রক্তচাপ মাপা উচিত।

যদি দেখা যায় তিনবারই শরীরে রক্তচাপ বেশি তবে মোটামুটি নিশ্চিত হয়েই বলয়া যেতে পারে যে অই ব্যক্তি উচ্চ রক্তচাপে ভুগছেন। আমাদের দেশে উচ্চ রক্তচাপকে প্রেসার বা ব্লাড প্রেসার বলে উল্লেখ করা হয়।

উচ্চ রক্তচাপের লক্ষণ

উচ্চ রক্তচাপ সাধারনত কোন লক্ষন নিয়ে আসে না। আমাদের চার পাশে এমন অনেক লোক আছেন তারা একদমই জানেন না যে তাদের উচ্চ রক্তচাপ আছে। বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই দেখা যায় কেউ একজন শারীরিক প্রবলেম নিয়ে ডাক্তারের কাছে গেলেন আর ফেরার সময়ে শারীরিক সমস্যার সাথে জেনে এলেন তার উচ্চ রক্তচাপ আছে। আমরা সচারচর ব্লাড প্রেসার বা রক্ত চাপ নিয়মিত না মাপার ফলে কোনো জটিল রোগের চিকিৎসা নিতে গিয়ে অথবা দীর্ঘদিনের উচ্চ রক্তচাপ থেকে কোন একটা জটিল কিছু হওয়ার পরেই ধরা পড়ে উচ্চ রক্তচাপের ব্যাপারটা। এসকল কারনেই উচ্চ রক্রচাপকে নিরব ঘাতক বলয়া হয়। কারও কারও ক্ষেত্রে মাথায় ব্যাথা, মাথা ভার ভার লাগা, ঘড় ব্যাথা সহ শরীর খারাপ লাগতে দেখা যায়। এটাকে তাদের ভাগ্য বলতেই হয় কারন লক্ষন নিয়ে প্রাথমিক ভাবেই উচ্চ রক্তচাপ ধরা পড়েছে। বেশির ভাগ লোকের ক্ষেত্রেই লক্ষন দেখা যায় না ফলে জটিল রোগ শরীরে বাসা বাধার পরেই উচ্চ রক্তচাপ ধরে পড়ে। উচ্চ রক্তচাপ ধরা পড়ার আগে থেকেই এ ব্যাপারে সচেতন হওয়া উচিৎ। জেনে রাখা দরকার উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণের উপায় সমূহ।

রক্তচাপ খুব বেশি বেড়ে গেলে মাথা ব্যাথার পাশা পাশি চোখে ব্যাথা, চোখে ঝাপসা দেখা, শ্বাস-প্রশ্বাসে সমস্যা এমনকি নাক দিয়ে রক্ত পর্যন্ত পড়তে পারে। জানতে হবে উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণের উপায় সমূহ। জানা গেলেই অনেকাংশে পরিত্রান পাওয়া সম্ভম এই নিরব ঘাতক থেকে।

রক্তচাপ অনেক বেশি বেড়ে গেলে আরও কিছু  লক্ষণ দেখা যেতে পারে, যেমন,  মাথা ব্যাথার পাশাপাশি চোখে ব্যাথা বা ঝাপসা দেখা, নিশ্বাস নিতে কষ্ট হওয়া অথবা নাক দিয়ে রক্ত (ম্যালিগন্যান্ট হাইপারটেনশন) পড়া। এরকম জটিল লক্ষন দেখা দিলে দেরি না করে তৎকতখনা হাসপাতালে ছোটা উচিৎ।

ন্যাশনাল হার্ট ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা চিকিৎসক ব্রিগেডিয়ার আব্দুল মালিক বলেন উচ্চ রক্তচাপ আগে থেকে শনাক্ত করা এবং তা প্রতিরোধে বিভিন্ন ব্যবস্থা নিতে পারলে একে নিয়ন্ত্রনে রাখা সম্ভব। তিনি আরও বলেন স্বাস্থ্যকেন্দ্র বা স্বাস্থ্যকর্মীর কাছে গেলেই রক্তচাপ মেপে নেয়া উচিৎ। তাঁর মতে বয়স ২০ বছর হলে প্রতি বছর অন্তত একবার উচ্চ রক্তচাপ মাপা উচিৎ। আর, বয়স ৩৫-৪০ পার করলে আরও নিয়মিত রক্তচাপ মাপা উচিৎ। বাবা-মা কারো উচ্চ রক্তচাপ থাকলে সন্তাঙ্কে আরও বেশি সচেতন হতে হবে। জেনিটিক ভাবে এই রোগ হতে পারে।

ডা. মালিক বলছেন, উচ্চ রক্তচাপ ধরা পড়লে প্রথমদিকে ওষুধ ছাড়াই  এর চিকিৎসা করার চেষ্টা করতে হবে। জানতে হবে উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণের উপায় তিনি চারটি ব্যাপারে বিশেষ ভাবে জোর দেন:

১। লবণ খাওয়া কমাতে হবে।ওষুধ ছাড়াই উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণের উপায়।

২। নিয়মিত হাঁটাচলা করতে হবে।

৩। ওজন বেশি হলে ওজন কমাতে হবে।

৪। ধূমপান বর্জন করতে হবে।

যাদের উচ্চ রক্তচাপ নেই তারা যদি এই চারটি দিক মেনে চলেন তবে উচ্চ রক্তচাপ হওয়ার সম্ভাবনা খুবই কম।

১০ উপায়ে ওষুধ ছাড়াই উচ্চ রক্ত চাপ নিয়ন্ত্রনে রাখা সম্ভব এবং এতে হৃদ রোগের সম্ভাবনাও অনেকটা হ্রাস পাবে।

আপনার যখন উচ্চ রক্তচাপ ধরা পড়ে তখন আপনি আপনার রক্তচাপ কমিয়ে আনার জন্য ওষুধ খাওয়ার চিন্তা করেন। লাইফস্টাইল আপনার উচ্চ রক্তচাপের চিকিৎসার ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। আপনি যদি একটি স্বাস্থ্যকর জীবনধারা সহ সফলভাবে আপনার রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করেন তবে আপনি ওষুধের প্রয়োজনীয়তা এড়াতে, বিলম্ব করতে বা হ্রাস করতে পারেন।

আপনার রক্তচাপ কমাতে এবং এটি কম রাখার জন্য আপনি ১০ টি জীবনযাত্রার পরিবর্তন করতে পারেন। মচের ১০ টি উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণের উপায় জেনে তা সঠিক ভাবে ফলো করলে উচ্চ রক্তচাপ থেকে পরিত্রান পাওয়া সম্ভব। আসুন জেনে নেই-

১. অতিরিক্ত ওজন হ্রাস করুন এবং আপনার কোমরবন্ধটি দেখুন

ওজন বাড়ার সাথে সাথে রক্তচাপ প্রায়শই বেড়ে যায়। অতিরিক্ত ওজন হওয়ায় ঘুমের সময় শ্বাস প্রশ্বাসে বাধা সৃষ্টি করতে পারে (স্লিপ অ্যাপনিয়া) যা আপনার রক্তচাপকে আরও বাড়িয়ে তোলে। ওজন হ্রাস রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণের জন্য জীবনযাত্রার অন্যতম কার্যকর পরিবর্তন। অতিরিক্ত ওজন বা স্থূলকায় হয়ে গেলে অল্প পরিমাণে ওজন হ্রাস করা আপনার রক্তচাপ হ্রাস করতে সহায়তা করে।

আপনার কোমরের চারপাশে খুব বেশি ওজন বহন করা আপনাকে উচ্চ রক্তচাপের ঝুঁকিতে ফেলতে পারে।

সাধারণভাবে:

পুরুষদের ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে যদি তাদের কোমর পরিমাপ ৪০ ইঞ্চি (১০২ সেন্টিমিটার) এর বেশি হয় তবে এরা ঝুকির মধ্যে রয়েছে। যেকনো সময়ে উচ্চ রক্তচাপ  ধরা পড়তে পারে।

মহিলাদের কোমর পরিমাপ ৩৫ ইঞ্চি (৮৯ সেন্টিমিটার) এর বেশি হলে সেই সকল মহিলারাও ঝুঁকির মধ্যে রয়েছেন। সময় থাকতেই জীবন যাত্রায় আনুন আমূল পরিবর্তন।

এই সংখ্যা জাতিগত দিক থেকে বা ভিন্ন ভিন্ন গোষ্ঠীর মধ্যে কিছুতা পৃথক হয়ে থাকে। আপনার জন্য স্বাস্থ্যকর কোমর পরিমাপ সম্পর্কে আপনার ডাক্তারকে জিজ্ঞাসা করুন।

২. নিয়মিত ব্যায়াম করুন

নিয়মিত শারীরিক ক্রিয়াকলাপ – যেমন সপ্তাহে ১৫০ মিনিট, বা সপ্তাহের বেশিরভাগ দিন প্রায় ৩০ মিনিট – আপনার উচ্চ রক্তচাপ থাকলে আপনার রক্তচাপ প্রায় ৫ থেকে ৮ মিমি এইচজি হ্রাস করতে পারে। এটি সামঞ্জস্যপূর্ণ হওয়া গুরুত্বপূর্ণ কারণ আপনি যদি অনুশীলন বন্ধ করেন তবে আপনার রক্তচাপ আবার বাড়তে পারে। সুতরং ব্যায়ামের প্রতি যত্নশীল হোন।

আপনার যদি রক্তচাপ বেশি হয় তবে নিয়মিত অনুশীলন আপনার শরীরে উচ্চ রক্তচাপের বিকাশ এড়াতে সহায়তা করতে পারে। আপনার যদি ইতিমধ্যেই উচ্চ রক্তচাপ থেকে থাকে তবে নিয়মিত শারীরিক কসরত আপনার রক্তচাপকে নিরাপদ স্তরে নামিয়ে আনতে পারে।

রক্তচাপ কমাতে চেষ্টা করতে পারেন এমন অ্যারোবিক অনুশীলনের কয়েকটি উদাহরণের মধ্যে রয়েছে হাঁটাচলা, জগিং, সাইক্লিং, সাঁতার কাটা বা নিয়মিত নাচ। আপনি হালকা বা ভারি কাজ করার চেষ্টা করতে পারেন, এর মধ্যে রয়েছে শক্তি প্রয়োগ। অলস বসে থেকে শরীরে চর্বি আর শক্তি(energy)বাড়িয়ে গেলে উচ্চ রক্তচাপ দেখা দিবে। শক্তি প্রশিক্ষণ রক্তচাপ কমাতেও সহায়তা করে। সপ্তাহে কমপক্ষে দুই দিন সমস্ত স্টামিনা নিয়ে কাজ ও পরিশ্রম করুম। এ সম্পর্কে আপনার ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করে নিতে পারেন।

৩. স্বাস্থ্যকর ডায়েট

শস্য, ফলমূল, শাকসব্জী এবং কম ফ্যাটযুক্ত দুগ্ধজাত খাবার এবং স্যাচুরেটেড ফ্যাট এবং কোলেস্টেরলগুলিতে স্কিম্প সমৃদ্ধ একটি ডায়েট নিয়মিত খেলে আপনার রক্তচাপ ১১ মিমি হার্ট পর্যন্ত হ্রাস করতে পারে। এই খাওয়ার পরিকল্পনাটি হাইপারটেনশন রিলিজ করার মেনু হিসেবে এটি বহুল পরিচিত।।

খাদ্যাভাস পরিবর্তন করা খুব সহজ নয়,

তবে এই পরামর্শগুলির সাহায্যে আপনি একটি স্বাস্থ্যকর ডায়েট গ্রহণ করতে পারেন:

একটি খাদ্য ডায়েরি রাখুন। আপনি যা খান তা লিখে ফেলুন, পুরো সপ্তাহে কি কি খান টাড় লিস্ট করুন। আপনি কী খান, কতটুকু খান, কখন এবং কেন খান তা পর্যবেক্ষণ করুন। ডাক্তারের দেয়া ডায়েত চার্টের সাথে মিলিয়ে দেখুন কোন খাবার কি পরিমানে খেতে হবে। প্রয়োজনের অতিরিক্ত খাওয়ার হলে উচ্চ রক্তচাপ, ডায়াবিটিস ও শরীরের ওজন বেড়ে যাতে পারে।
পটাসিয়াম সমৃদ্ধ খাবার খাদ্য তালিকায় বেশি রাখুন। পটাসিয়াম রক্তচাপে সোডিয়ামের প্রভাব কমিয়ে দিতে পারে। পটাসিয়ামের সর্বোত্তম উত্স হলো ফল এবং শাকসব্জি। আপনার পক্ষে সবচেয়ে ভাল পটাশিয়াম স্তর সম্পর্কে আপনার ডাক্তারের সাথে আলোচনা করে  নিতে পারেন। এতে পরিমিত পটাশিয়াম সমৃদ্ধ খাদ্য গ্রহন নিশ্চিত হবে।

আপনাকে একজন স্মার্ট ক্রেতা হতে হবে। আপনি যখন কেনাকাটা করবে তখন খাবারের লেবেলগুলি পড়ুন এবং আপনার স্বাস্থ্যকর খাদ্য পরিকল্পনার ডায়েরীটি ফল্প করুন।

৪. আপনার ডায়েটে সোডিয়াম হ্রাস করুন

ডায়েটে সোডিয়াম হ্রাস আপনার রক্ত চাপের ঝুকি কমিয়ে আনার সাথে সাথে আপনার হৃদ রোগের ঝুকিও কমিয়ে আনবে। খাদ্য তালিকা থেকে সোডিয়াম কমিয়ে আনলে রক্তচাপ প্রায় ৫ থেকে ৬ মিমি এইচজি হ্রাস করতে পারে। সোডিয়াম গ্রহনের মাত্রা ১৫০০-২৩০০ মিলিগ্রাম/দিন রাখুন।

আপনার ডায়েটে সোডিয়াম হ্রাস করতে, এই পরামর্শগুলি বিবেচনা করুন:

খাবারের লেবেল পড়ুন। যদি সম্ভব হয় তবে সাধারণত যে খাবারগুলি এবং পানীয়গুলি আপনি গ্রহণ করেন সেগুলির কম-সোডিয়াম সমৃদ্ধ চয়ন করুন।

প্রক্রিয়াজাত খাবার কম খান। প্রায় সব খাবারে স্বল্প পরিমাণে সোডিয়াম স্বাভাবিকভাবেই থাকে। প্রক্রিয়া চলাকালীন সময়ে বেশিরভাগ সোডিয়াম যুক্ত হয়।

খাবারে যতটা সম্ভব লবণ যোগ করবেন না। অতিরিক্ত লবনের বিকল্প হিসেবে আপনার খাবারে স্বাদ যোগ করতে ভেষজ বা মশলা ব্যবহার করুন।

৫. অ্যালকোহল সীমিত করুন

অ্যালকোহল আপনার স্বাস্থ্যের জন্য ভাল এবং খারাপ উভয়ই হতে পারে। কেবলমাত্র পরিমিত অবস্থায় অ্যালকোহলিক পানীয় পান করার মাধ্যমে রক্তচাপ প্রায় ৪ মিমি এইচজি পর্যন্ত হ্রাস করা সম্ভব। ১২ আউন্স বিয়ার ও ৫ আউন্স বিয়ার সাধারনত ১.৫ আউন্স  এলকোহলের সমান। স্লাইড এলকোহল পান রক্তচাপকে নিয়ন্ত্রনে রাখে। মাত্রাক্রিক্ত  এলকোহল মস্তিস্কের বিকৃতি ঘটায় তাই এলকোহল পানে সতর্কো হোন।

রিমানের থেকে অতিরিক্ত অ্যালকোহল জাতীয় পানীয় রক্তচাপকে বেশ বাড়িয়ে তুলতে পারে। এটি রক্তচাপের ওষুধের কার্যকারিতাও হ্রাস করতে পারে।

৬. ধূমপান ছেড়ে দিন

ধূমপান রক্তচাপ বাড়িয়ে তোলে। একটি সিগারেত শেষ করার কয়েক মিনিটের মধ্যে শরীরে রক্তচাপ বেড়ে যায়। ধূমপান ছেড়ে দিন আপনার রক্তচাপ ধীরে ধীরে স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে আসবে। ধূমপান ত্যাগ আপনার হৃদরোগের ঝুঁকি হ্রাস করবে এবং আপনার সামগ্রিক স্বাস্থ্যের উন্নতি করতে সহায়ক হবে। ধূমপান ত্যাগকারী ব্যক্তিরা যারা ধূমপান ছাড়ে না তাদের থেকে অনেক বছর বেশি বেঁচে থাকে।

৭. ক্যাফেইন গ্রহন

রক্তচাপ রোধে ক্যাফেইনের ভুমিকা এখনও বিতর্কিত। তবে ক্যাফেইন একেবারেই গ্রহন করেন না এমন লোকদের রক্তচাপ 10 মিমি এইচজি পর্যন্ত বাড়িয়ে তুলতে পারে। বিভিন্ন গবেষণায় দেখা গেছে যারা নিয়মিত কফি পান করেন তারা তাদের রক্তচাপের উপর সামান্য বা কোনও প্রভাব ফেলতে পারেন।

যদিও রক্তচাপে ক্যাফিনের দীর্ঘমেয়াদী প্রভাবগুলি পরিষ্কার নয়, তবে এটি রক্তচাপ কিছুটা বাড়িয়েও দিতে পারে।

ক্যাফেইন আপনার রক্তচাপকে বাড়িয়ে তুলে বা প্রভাবিত করে কিনা তা দেখতে, ক্যাফিনযুক্ত পানীয় পান করার ৩০ মিনিটের মধ্যে আপনার রক্তচাপ পরীক্ষা করুন। যদি আপনার রক্তচাপ ৫ থেকে ১০ মিমি এইচজি বৃদ্ধি পায়, তবে আপনি ক্যাফেইন গ্রহনে রক্তচাপ বাড়ানোর ক্ষেত্রে সংবেদনশীল হতে পারেন। আপনার রক্তচাপে ক্যাফেইনের প্রভাব সম্পর্কে আপনার ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করুন।

৮. স্ট্রেস হ্রাস

দীর্ঘস্থায়ী চাপ(Stress) উচ্চ রক্তচাপে অবদান রাখতে পারে। অবসাদ ও ডিপ্রেশনের থেকে মানুষিক স্ট্রেস আসে। অস্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়া, অ্যালকোহল পান বা ধূমপান করে আমরা স্ট্রেস রোধ করতে চেষ্টা করি যার ফলে রক্তচাপ বাড়ার সম্ভাবনা অনেক বেশি। মানুষিক চাপ শরীরে রক্তের প্রবাহ বৃদ্ধি করে।

অন্য দিকে কাজের চাপ, পরিবার, আর্থিক বা অসুস্থতা সহ অন্য কী কারণে আপনার স্ট্রেস বোধ হয় তা নিয়ে কিছুটা সময় নিন। যখন বুঝতে পারবেন কি কারনে আপনার এমন বোধ হচ্ছে তখন তা থেকে নিজেকে সরিয়ে নিন দেখবেন রক্তচাপ কমে আসবে, মন  ফুরফুরে থাকবে।

আপনি যদি আপনার সমস্ত স্ট্রেসারকে দূর করতে না পারেন তবে আপনি কমপক্ষে একটি স্বাস্থ্যকর উপায়ে তাদের মোকাবেলা করতে পারেন। যেমন-

আপনার প্রত্যাশা পরিবর্তন করুন। উদাহরণস্বরূপ, আপনার প্রতিটা দিনের পরিকল্পনা করুন এবং নিজের খুশিকে প্রাধান্য দিন। এমন কিছু জিনিস রয়েছে যা আপনি পরিবর্তন বা নিয়ন্ত্রণ করতে পারবেন না, যদি তা বুঝতে পারেন তবে আপনি তা নিয়ন্ত্রন করতে চেষ্টা করুন।আপনি নিয়ন্ত্রণ করতে পারেন এমন সমস্যাগুলিতে মনোনিবেশ করুন এবং সেগুলি সমাধানের পরিকল্পনা তৈরি করুন।

আপনার যদি কর্মক্ষেত্রে কোন সমস্যা হয় তবে আপনার ম্যানেজারের বা উচ্চ পদস্থদের সাথে কথা বলার চেষ্টা করুন। আপনার বাচ্চা বা স্বামী / স্ত্রীর সাথে যদি আপনার বিরোধ হয়, তবে বিসন্ন হয়ে না থেকে এটি সমাধানের পদক্ষেপ নিন। দেখবেন স্ট্রেস কমে গেছে।

আপনাকে বিভ্রান্ত করে এমন জিনিস/কাজ এড়িয়ে চলুন। সম্ভব হলে এমন লোকদের এড়িয়ে চলুন যারা আপনাকে চাপ দেয়। নিজেকে সময় দিন। হাটাচলা, রান্না বান্না, প্রিয় জনকে সময় দিন। মানব সেবায় নিজেকে নিবেদিত রাখার চেষ্টা করুন।

৯. বাড়িতে আপনার রক্তচাপ পর্যবেক্ষণ করুন এবং ডাক্তারকে নিয়মিত জানান

হোম পর্যবেক্ষণ আপনাকে আপনার রক্তচাপের উপর নজর রাখতে সহায়তা করতে পারে। নিয়মিত বাড়িতে রক্তচার পরীক্ষা আপনার জীবনযাত্রার পরিবর্তনগুলি ঠিক ভাবে কাজ করছে কিনা তা নিশ্চিত করবে এবং আপনার এবং আপনার ডাক্তারকে সম্ভাব্য স্বাস্থ্যগত জটিলতা থেকে আগাম সতর্ক করবে।

আপনার রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণের জন্য আপনার ডাক্তারের সাথে নিয়মিত যোগাযোগ রাখা গুরুত্বপূর্ণ। আপনার রক্তচাপ যদি নিয়ন্ত্রিত হয় তবে আপনার কত ঘন ঘন এটি পরীক্ষা করা প্রয়োজন তা সম্পর্কে আপনার ডাক্তারের সাথে যোগাযোগ করুন।

১০. আপনজনের হেল্প নিন

পরিবার এবং বন্ধুরা আপনার স্বাস্থ্যের উন্নতিতে সহায়তা ও প্রশংশা করেন। রক্তচাপ কম রাখার জন্য তারা আপনাকে নিজের যত্ন নিতে, আপনাকে ডাক্তারের অফিসে নিয়ে যেতে বা কোনও অনুশীলনের প্রোগ্রামে অংশ নিতে উত্সাহিত করতে পারে।

আপনার নিজের পরিবার এবং বন্ধুবান্ধবকে ছাড়িয়ে আপনার যদি আরও উৎসাহ ও সমর্থন প্রয়োজন বলে মনে করেন তবে এলাকা বা সোশ্যাল মিডিয়া ভিত্তিক বিভিন্ন গ্রুপ বা দলে যোগদানের করুন। এটি আপনাকে এমন লোকদের সাথে পরিচত ও যোগাযোগ করিয়ে দিতে পারে যারা আপনার মনোবল বাড়িয়ে দিতে পারে এবং যারা আপনার অবস্থার সাথে লড়াই করতে ব্যবহারিক পরামর্শ দিতে পারে।

শেষ কথা

রক্তচাপ কমাতে অনেক প্রাকৃতিক ও ভেষজ উপায় রয়েছে। কোনটি কাজ করে আর কোনটি কাজ করে না তা নিয়ে জল্পনা কল্পনা আর সন্দেহ রয়েছে মানুষের মধ্যে।যুগ যুগ ধরে মানুষ ওষুধ ছাড়াই উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণের সহজ পদ্ধতি খুঁজে আসছে। কেউ সফল কেউ বিফল।উপরের আলোচিত বিষয় গুলি ফলো করলে আশা করা যায় আপনার উচ্চ রক্তচাপ অনেক্তাই কমে যাবে এবং এটা বিভিন্ন সময়ে পরিক্ষিত খাদ্যাভ্যাস যে রক্তচাপ কমিয়ে আনে তা বলার বিকল্প রাখে না। খাবার তালিকায় রসুন, কম লবন, সীমিত সুগার/চিনি, মাশরুম, প্রোবায়োটিক্স এবং প্রিবায়োটিকস, মাছের তেল, পেঁয়াজ নির্যাস, অতিরিক্ত ক্যালসিয়াম গ্রহণ করা এবং হিবিস্কাস চা থাকলে অনেকাংশেই উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রনে রাখা যায়।

Aspire Cot

Aspire Cot

I am just a grave of thoughts. I know only one thing that I know nothing. people with nothing to declare carry the most but be sure I am exceptional.

You may also like...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *